শিরোনাম
পাবনা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৪২ বোতল ফেন্সিডিল সহ ১জন আটক মেয়র আরফানুল হক রিফাতকে কুমিল্লা ক্রীড়া পরিবারের সংবর্ধনা কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার নারীদের স্বাবলম্বী করতে সুনেহেরা ক্রিয়েশন এর বিনামূল্যে ওয়ার্ক সপ ফরিদপুরে ৪০ মন ওজনের কালাপাহাড় নামক গরুর দাম হাঁকা হচ্ছে ২৫ লক্ষ টাকা  কুমিল্লায় ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা নারীর দায়ের করা মামলায় ধর্ষক গ্রেপ্তার  জামালপুর রেলওয়ে ওভারপাসে আরো ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিলেন প্রধানমন্ত্রী, ব্যয় দাড়ালো ৪৫০ কোটি টাকা ঢাবির ‘খ’ ইউনিটে প্রথম রাজেন্দ্র কলেজের নাহনুল কবির নুয়েল দেশের গন্ডি পাড়ি দিয়ে আন্তর্জাতিক পরিসরে সম্মানিত তাহসীন বাহার মাদকাসক্তি রোধে পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় করতে হবে: জেলা প্রশাসক কুসিক নির্বাচনের বিজয়ী প্রার্থীদের গেজেট প্রকাশ
কুসিক মেয়র প্রার্থী কায়সারের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে আ’লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের হট্টগোল সিইসির সামনে

কুসিক মেয়র প্রার্থী কায়সারের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে আ’লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের হট্টগোল সিইসির সামনে

স্টাফ রিপোর্টার :

আসন্ন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে কুমিল্লা জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের নিয়ে আয়োজিত‌ হয় এক মতবিনিময় সভা । সভায় এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল।
রবিবার (২৯মে) সকালে কুসিক রিটার্নিং অফিসার এর আয়োজন এই অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।আয়োজিত এই মতবিনিময় সভায় হট্টগোল হয়।
মতবিনিময় সভায় স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও ঘোড়া প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা নিজাম উদ্দিন কায়সারের এক বক্তব্যকে কেন্দ্র করে সরকার সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীরা হট্রগোল শুরু করে দেয়। এ ঘটনা চলে প্রায় ১০ মিনিট। পড়ে সভার সভাপতি ও কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।
বক্তব্য রাখতে গিয়ে মেয়র প্রার্থী ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কুমিল্লা মহানগর সাবেক সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার বলেন, ২০১৮ সাল প্রহসনের নির্বাচন হয়। রাতের ভোটে সরকার বিজয়ী হয়। আমরা সেই নির্বাচন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের কাছে আশা করি না। এমন সময় নগরীর ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মাসুদুর রহমান মাসুদ ও ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জমির উদ্দিন খান জম্পিসহ বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিবাদ করেন। তারা মেয়র প্রার্থী নিজাম উদ্দীন কায়সারের কাছ থেকে মাইক্রোফোন নিয়ে নিতে নির্বাচন কমিশনের কাছে আহবান জানান ও হট্টগোল শুরু করেন। এ সময় কমপক্ষে দশ মিনিট ধরে বাকবিতন্ডা চলতে থাকে।
পরে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসানের আহবানে মেয়র প্রার্থী নিজাম উদ্দীন কায়সার ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা শান্ত হন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও ঘোড়া প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা নিজাম উদ্দিন কায়সার বলেন, আপনারা দেখেছেন খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সামনে ক্ষমতাসীন দলের কাউন্সিলর প্রার্থীরা কি আচরণ করেছে। ভিন্নমত শোনার মত ধৈর্য্য তাদের নেই। তাঁরা যে ধরনের আচরণ করেছে‌ এইগুলো মোটেও কাম্য নয়। আমি প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিকট বিনিত অনুরোধ করছি  বিষয় গুলো আমলে নিয়ে খতিয়ে দেখা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY SmartHostBD.com