শিরোনাম
জামালপুর রেলওয়ে ওভারপাসে আরো ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিলেন প্রধানমন্ত্রী, ব্যয় দাড়ালো ৪৫০ কোটি টাকা ঢাবির ‘খ’ ইউনিটে প্রথম রাজেন্দ্র কলেজের নাহনুল কবির নুয়েল দেশের গন্ডি পাড়ি দিয়ে আন্তর্জাতিক পরিসরে সম্মানিত তাহসীন বাহার মাদকাসক্তি রোধে পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় করতে হবে: জেলা প্রশাসক কুসিক নির্বাচনের বিজয়ী প্রার্থীদের গেজেট প্রকাশ আগামীকাল প্রকাশ করা হচ্ছে ঢাবির ‘খ’ ইউনিট অর্থাৎ মানবিক বিভাগে ভর্তি ফল কুমিল্লায় পিকআপে মাদক পরিবহনের সময় ১০০ কেজি গাঁজাসহ আটক ১ টাকার অভাবে চিকিৎসা বন্ধ কলেজছাত্রী ফারিহার পাবনা আমিনপুরে ১কেজি গাঁজাসহ আটক-১ টিকটিক বানাতে পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খুলে নিলো যুবক
ভোটের মাঠে কথার লড়াই

ভোটের মাঠে কথার লড়াই

নিজস্ব প্রতিবেদন :

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে তিন হেভিওয়েট মেয়র প্রার্থীর প্রচারণা ঘিরে ভোটের আগেই জমে উঠেছে কথার লড়াই। নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় ভোট চাইতে গিয়ে ভোটারদের কাছে নানা প্রতিশ্রুতি যেমন তারা দিচ্ছেন; তেমনি একে অপরের বিরুদ্ধে করছেন উত্তপ্ত অভিযোগ। নির্বাচনী প্রচারণার শুরুর দিকে এমন পরিবেশ না থাকলেও ভোটের দিন যতোই এগিয়ে আসছে এসব অভিযোগের উত্তাপ ততোই বাড়ছে। গত দুইদিনে প্রার্থীরা প্রচারণায় গিয়ে প্রতিশ্রুতির চেয়ে বেশি অভিযোগের তীর ছুঁড়েছেন একে অপরের প্রতি।
কুসিক নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের সরাসরি অভিযোগ সদ্য সাবেক মেয়র ও বিএনপির বহিস্কৃত নেতা মনিরুল হক সাক্কুর বিরুদ্ধে। রিফাত বলছেন, ১৬ বছরে জনপ্রতিনিধিত্ব করাকালীন সময়ে সাক্কু দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছেন। মেয়র নির্বাচিত হলে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের দুর্নীতির শে^তপত্র প্রকাশ করা হবে। যারা দুর্নীতির সাথে জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

রিফাত আরো বলেন, আমি মেয়র হলে কুমিল্লাবাসীকে টাউন হলে জড়ো করে সাক্কুর দুর্নীতির চিত্র প্রকাশ করবো। আর তিনি (সাক্কু) যদি দুর্নীতি না করে থাকেন, টাউন হলে এসে প্রমাণ দিবেন।
প্রচারণায় সময় সাংবাদিকদের কাছে প্রতিউত্তরে সাক্কু বলেন, আরফানুল হক রিফাত উদ্ভট কথা বার্তা বলছেন। গত ৯ বছর আমি স্থানীয় এমপি সাহেবের সাথে সমন্বয় করে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করেছি। এখন রিফাত ভাই নির্বাচনে দাঁড়িয়েছে বলে আমি চোর হয়ে গেলাম? আমি চোর হলে রিফাত বড় চোর।
মনিরুল হক সাক্কু বলেন, আমি দুর্নীতি করে থাকলে তিনি (রিফাত) প্রমাণ করুক। আমার দুর্নীতির দায় দায়িত্ব নেওয়ার তিনি কে। তিনি কি জজ, সরকার? আমি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে মেয়র ছিলাম। পারলে তারা মন্ত্রণালয়ে আমার নামে অভিযোগ দিক। তা না করে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন। আমি চাই তার শুভবুদ্ধির উদয় হোক। তাদের উচিত আমার বিরুদ্ধে কথা না বলে জনগণের কাছে ভোট চাওয়া। জনগণ যাকে ভোট দিবেন, তিনিই মেয়র হবেন।
অপরদিকে প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীসহ প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনছেন অপর স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার। তিনি বলছেন, নির্বাচনে লেভেলপ্লেয়িং ফিল্ড দিন দিন নষ্ট হচ্ছে। আমি যে ৭টি দাবি নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছিলাম, তা পূরণ হচ্ছে না। ভোটের দিন নিয়ে আমি শংকিত।
হেভিওয়েট দুই প্রার্থী সাক্কু ও রিফাতের দিকে আঙ্গুল তুলে কায়সার বলেন, তারা দুজনেই লুটেরা। কুমিল্লাবাসী লুটেরাদের কাছ থেকে মুক্তি চায়। নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু থাকলে ১৫ জুন ভোটে ঘোড়া মার্কা জয়লাভ করবে।
নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন সতর্ক আছে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরী। তিনি বলেন, আমরা যেসব অভিযোগ পাচ্ছি সেগুলো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিচ্ছি। অনেক মিথ্যা অভিযোগও আসে আমাদের কাছে। যে কারণে সব অভিযোগ আমলেও নেওয়া যাচ্ছে না। তবে প্রার্থীদের কোনো অভিযোগ থাকলে তারা লিখিতভাবে জানাতে হবে। কুমিল্লায় নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু থাকবে বলেও জানান তিনি।

প্রচারণায় গতি বাড়ছে প্রার্থীদের:
নির্বাচন কমিশনের বেঁধে দেওয়া প্রচার-প্রচারণার মাঝামাঝি সময়ে এসে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে পৌঁছাতে দ্রুত বেগে ছুটছেন প্রার্থীরা। পথসভা, উঠান বৈঠক ও ব্যক্তিগতভাবে দেখা করে ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন তারা। অঙ্গীকার ও প্রতিশ্রুতির বিনিময়ে জনসমর্থন আদায়ের চেষ্টা চালাচ্ছেন অবিরত।
শুক্রবার সকাল থেকে কুমিল্লা নগরীর জাঙ্গালীয়া বাসস্ট্যান্ডে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের সাথে দেখা করে ভোট চান নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত। পরে তিনি শাসনগাছা বাসটার্মিনালেও একটি পথসভায় যোগ দেন।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু নগরীর দিশাবন্দ, কাজিপাড়া, উনাইসার এলাকায় গণসংযোগ করেন। জুমার নামাজের পর তিনি উনাইসার মসজিদের সামনে উঠান বৈঠকে বক্তব্য রাখেন। এসময় সাক্কু ভোটারদের বলেন, দুই মেয়াদে মেয়র থাকাকালে আমি আমার সাধ্যমতো উন্নয়ন করেছি। নগরীর উন্নয়নে আরো অনেক বেশি বরাদ্দ আসছে। আমাকে টেবিল ঘড়ি প্রতীকে ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করে অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করার সুযোগ দিন।
অপর স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার শুক্রবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৩ নং ও ৮ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন এবং পথসভায় বক্তব্য রাখেন। সকালে তিনি নগরীর চর্থা এলাকায় অবস্থিত সরকারি মহিলা কলেজের সামনে থেকে গণসংযোগ শুরু করেন। এসময় তিনি বলেন, আমি প্রচারণা চালাতে গিয়ে আমার প্রতীক ঘোড়ার পক্ষে গণজোয়াড় দেখছি। পরিবর্তন প্রত্যাশী কুমিল্লাবাসী আমাকে মেয়র নির্বাচিত করবেন, ইনশাল্লাহ।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY SmartHostBD.com